কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বা গুগল অ্যাকাউন্ট খোলা যায়। How to Create Gmail Account or Google Account

কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট (Gmail account) বা গুগল অ্যাকাউন্ট (Google account) খোলা যায়।

how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account

গুগলের(Google) অন্তর্ভুক্ত জিমেইল(Gmail) বর্তমান সময়ে প্রাপ্ত সবচেয়ে সহজলভ্য ও জনপ্রিয় ইমেইল সফটওয়্যার প্ল্যাটফর্ম। আজ অনলাইন হোক বা অফলাইন যেকোনো কাজে আমাদের একটি ইমেইল আইডির প্রয়োজন হয়।  অনলাইন শপিং করার কথা, facebook অ্যাকাউন্ট খোলা বা চাকরির জন্য বায়োডাটা দেওয়া কিংবা কোনো ব্যবসায়, সব জায়গাতেই আপনার একটি ইমেইল একাউন্ট দেওয়াটা দরকার হবে।

প্রসঙ্গত বলে রাখা ভালো, gmail account এবং google account দুটোই একই জিনিস। তাই, অনেকে যারা google account কিভাবে বানাবো এর বিষয়ে খোঁজ করছেন, তারা এইটা মনে রাখবেন যে আপনি একটি জিমেইল আইডি বানানো মানেই গুগল আইডি বানানো। জিমেইল গুগলের একটি product আর তাই গুগল বা জিমেইল অ্যাকাউন্ট দুটো একেই জিনিস।
এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের, Google account বা gmail-এ একটি ফ্রি ইমেইল আইডি(email id) কিভাবে খুলতে হয় তা বলবো। Gmail account বা Google account খোলা অনেক সোজা।তাই, নিচে আমি যেমন করে আপনাদের অ্যাকাউন্ট বানানোর নিয়ম বলবো, সেরকম করে আপনি এক এক করে নিজের জিমেইল আইডি বা গুগল অ্যাকাউন্ট বানিয়ে নিতে পারবেন।


একটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট (gmail account) বা গুগল অ্যাকাউন্ট (Google account) কিভাবে বানাবো ?


জিমেইলে একটি ইমেইল আইডি বানানোর যা নিয়ম আমি নিচে বলবো তা করার জন্য আপনার একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কিংবা মোবাইল ফোন, মোবাইল নম্বর এবং ইন্টারনেট কানেক্শনের দরকার হবে। এমনিতে, আপনি মোবাইল নাম্বার ছাড়া জিমেইলে অ্যাকাউন্ট বানাতে পারবেন। কিন্তু, মোবাইল নাম্বার ছাড়া আইডি বানালে একটি সমস্যা হতে পারে। যদি, আপনি কোনসময় নিজের জিমেইল password ভুলে যান, তখন নতুন পাসওয়ার্ড পাওয়াতে আপনার জন্য অনেক কষ্ট হতে পারে। তাই নতুন ইমেইল আইডি বানানোর সময় নিজের মোবাইল নাম্বার দেওয়াটা অনেক জরুরি।

Gmail আইডি কিভাবে খুলবো ?

অ্যাকাউন্ট তৈরি করার আগে, আপনি নিজের কম্পিউটার বা ল্যাপটপ কিংবা মোবাইলের web browser এ গিয়ে জিমেইলের ওয়েবসাইটে যান ( www.google.com ) ( www.gmail.com ) । জিমেইলের ওয়েবসাইটে গিয়ে তারপর নিচে দেওয়া steps গুলো এক এক করে করুন।

(১)
গুগল জিমেইলের ওয়েবসাইটে যাওয়ার পর আপনি একটি বাক্স দেখবেন, যেখানে আপনাকে আপনার জিমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে বলা হবে। কিন্তু, যেহেতু আপনার কাছে কোনো আইডি বা পাসওয়ার্ড নেই তাই আপনাকে একটি নতুন ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড বানাতে হবে। নতুন ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড বানানোর জন্য সবচেয়ে আগে বক্সের নিচে থাকা “Create account” লিংকে ক্লিক করতে হবে।
how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account


(২)
Create account লিংকে ক্লিক করার পর আপনি একটি পেজ দেখবেন যেখানে আপনার কিছু তথ্য (details) দিতে হবে।
যেমন আপনার নাম,
নতুন ইমেইল আইডি,
পাসওয়ার্ড।
সবচেয়ে প্রথমে, “First name” এবং “last name” এর জায়গায় আপনি নিজের প্রথম এবং শেষ নাম লিখুন।
তারপর, “Username” এর জায়গায় নিজের নতুন জিমেইল আইডি লিখুন। আপনি username (নতুন ইমেইলের আইডির নাম) যা ভালো বুঝবেন সেটাই দিতে পারবেন। মনে রাখবেন, আপনি এখানে যা নাম দেবেন সেটাই আপনার গুগল বা জিমেইল আইডি হবে এবং ভবিষ্যতে জিমেইলে লগইন করার জন্য এবং কাওকে ইমেইল পাঠানোর জন্য আপনাকে এই username বা মেইল আইডি টি ব্যবহার করতে হবে।
এখন শেষে, “password” এবং “confirm password” এর জায়গায় একটি পাসওয়ার্ড লিখুন। যা পাসওর্ড দিবেন সেটা দুটো জায়গায় একেই হতে হবে। আর মনে রাখবেন ওপরে বানানো ইমেইল username এবং এখন বানানো পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনি নিজের মেইল অ্যাকাউন্ট লগইন করতে পারবেন। তাই পাসওয়ার্ড যা দিবেন সেটা ভালোকোরে মনে রেখেনিবেন।
এখন ফর্মে সব ভরার পর এখন নিচে “next” এর লিংকে ক্লিক করুন।
how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account


(৩)
প্রথম ফর্মটা ভালো করে ভরার পর এখন আপনি আরেকটা ফর্ম দেখবেন পাবেন। এই ফর্মে আপনাকে নিজের মোবাইল নম্বর, জন্মের তারিখ, এবং লিঙ্গ (male বা female) সেটা জানাতে হবে।
এরপর আপনার মোবাইল নাম্বার (phone number) অপশনে ক্লিক দিতে হবে। কিন্তু, আমি যা আগে বলেছি আপনি যদি মোবাইল নাম্বার ছাড়া জিমেইল আইডি বানাতে চান তাহলে মোবাইল নম্বর না দিলেও চলবে।
এখন, আপনি “recovery email address” option এ যদি কোনো অন্য ইমেইল আইডি  আপনার কাছে আছে তাহলে তা এখানে দিন। যদি, আপনার কাছে কোনো অন্য ইমেইল আইডি বানানো নেই তাহলে কিছু লিখতে হবেনা। এই option এ কিছু না দিলেও চলবে। Recovery email address এর মাধ্যমে আপনি ভবিষ্যতে ভুলে যাওয়া অ্যাকাউন্ট পাসওয়ার্ড ফেরত (recover) পেতে পারবেন।
এখন নিচে “your birthday” অপশনে গিয়ে নিজের জন্ম তারিখ দিন।
এখন নিচে, “Gender” (লিঙ্গ) অপশনে গিয়ে নিজের লিঙ্গ বাছুন। আপনি পুরুষ হলে “male” এবং মহিলা হলে “female” অপশনের বাছাই করুন।
how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account


সবকিছু লেখার পর নিচে “next” লিংকে ক্লিক করুন।

(৪)
যদি আপনি আগের ফর্মে নিজের মোবাইল নাম্বার দিয়ে থাকেন তাহলে এখন আপনার দেওয়া মোবাইল নাম্বারটি verify করতে হবে। নম্বর verify করার জন্য আপনি “verify your phone number” নামের একটি পেজ দেখবেন।
এখন, verify phone number পেজে নিচে “send” অপশনে ক্লিক করুন। এতে আপনার দেওয়া মোবাইল নাম্বারে গুগলের থেকে একটি কোড(OTP CODE) নাম্বার যাবে।

(৫)
এখন নিজের মোবাইলে যাওয়া কোড নম্বরটি আপনি “enter verification code” বক্সে লিখুন এবং নিচে “verify” লিংকে ক্লিক করুন।

(৬)
এখন মোবাইল নাম্বার verify করার পর, পরের স্টেপ হবে google terms & conditions পেজটি গ্ৰহণ (accept) করতে হবে। Terms এবং conditions গ্রহণ করার জন্য যেই privacy & terms পেজ আপনি দেখছেন তাতে নিচে “I agree” লিংকে ক্লিক করুন। I agree তে ক্লিক করলে গুগল privacy এবং terms আপনার দ্বারা গ্রহণ হয়ে যাবে।
how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account


(৭)
Google privacy and terms গ্রহণ করার পর আপনি “Get more from your number” বলে একটি পেজ দেখতে পারেন। এখানে, গুগল অথবা জিমেইল আপনাকে গুগলের অন্য সেবা গুলির জন্য আপনার মোবাইল নম্বর ব্যবহার করার কথা জিগাবে। যেমন, গুগলের ভিডিও কল সেবা, গুগল ফোটো ইত্যাদি। তো, যেহেতু আপনি নিজের ইমেইল আইডি বানাতে চান তাই, নিচে “skip” লিংকে ক্লিক করুন।
how-to-create-gmail-account-or-google-account
how-to-create-gmail-account-or-google-account


(৮)
অভিনন্দন, এখন আপনার একটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট এবং গুগল অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে গেছে। এখন আপনি নিজের বানানো ইমেইল আইডি দিয়ে অন্য মেইল আইডিতে ইমেইল পাঠাতে পারবেন এবং অন্য কেউও আপনার জিমেইল আইডিতে মেইল পাঠাতে পারবে।
how-to-create-gmail-account-or-google-account



আর, আপনার মেইল আইডিতে যদি কোনো মেইল আসে তাহলে আপনি তা “Inbox” গিয়ে দেখতে পারবেন। জিমেইল ব্যবহার করা অনেক সোজা।  আপনি কয়দিন ব্যবহার করলেই বুঝে যাবেন।

আশাকরি, আজকের এই পোস্ট আপনাদের ভালো লেগেছে। যদি তাই হয় তাহলে আর্টিকেল টি শেয়ার অবশ্যই করবেন। এবং, নিচে comment করতে ভুলবেননা।😄
SHARE

Milan Tomic

Hi. I’m Designer of Blog Magic. I’m CEO/Founder of ThemeXpose. I’m Creative Art Director, Web Designer, UI/UX Designer, Interaction Designer, Industrial Designer, Web Developer, Business Enthusiast, StartUp Enthusiast, Speaker, Writer and Photographer. Inspired to make things looks better.

  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a Comment