রাফাল যুদ্ধবিমানের পর, এবার ভারতীয় বায়ুসেনার পাখির চোখ S-400 ট্রায়াম্ফ...


রাফাল যুদ্ধবিমানের পর, এবার ভারতীয় বায়ুসেনার পাখির চোখ S-400 ট্রায়াম্ফ...

রাফাল যুদ্ধবিমানের পর, এবার ভারতীয় বায়ুসেনার পাখির চোখ S-400 ট্রায়াম্ফ...
S-400 triumph
বিস্তর বিতর্ক শেষে ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে এসেছে বর্তমান সময়ের অন্যতম শক্তিশালী যুদ্ধবিমান রাফাল। ফ্রান্স থেকে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং যুদ্ধবিমান ভারতের নিয়ে এসেছেন। 2016 সালে পাওয়া 59000 কোটি টাকার চুক্তি অনুযায়ী প্রথমে যে 36 টি রাফাল বিমান ভারতের পাওয়ার কথা ছিল তার সবকটি এদেশে পৌঁছোবে 2022 সালের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে। রাফাল বিমান এরপর এবার ভারতীয় বায়ুসেনার চোখ সবচেয়ে উন্নত প্রযুক্তির বিমান বিধ্বংসী ও ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা ট্রায়াম্ফের দিকে।‌ প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা এই S-400 ট্রায়াম্ফকে সবথেকে অত্যাধুনিক স্টেলথ খাদক হিসাবে চিহ্নিত করে থাকে। দেশের সামরিক বিশারদ এর মতে, ভারত-রাশিয়া প্রতিরক্ষা চুক্তি অনুযায়ী প্রায় 330 বিলিয়ন রুবেলের বিনিময় ভারত রাশিয়ার কাছ থেকে 5 টি S-400 এডভান্স এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম পাবে। আধুনিক S-400 ব্যবস্থা হাতে চলে এলে স্বাভাবিকভাবেই প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে পরশি কয়েকটি দেশকে আরো কড়া বার্তা দেওয়া সুবিধা হবে। 2002 সাল থেকে সংশ্লিষ্ট S-400 ট্রাযাম্ফ একে একে হাতে আসা শুরু করবে। 2022-23 এর মধ্যে সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। যা ভারতীয় বায়ুসেনার অন্তর্ভুক্ত হলেই সেগুলিকে নির্দিষ্ট জায়গায় দ্রুত মোতায়ন করা হবে।
বায়ুসেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, S-400 ট্রায়াম্ফের পাল্লা 400 কিলোমিটার। এর দুটি রেডার এক বা একাধিক লঞ্চার ও একটি অস্ত্র কমান্ড ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা রয়েছে। এই মিসাইল সিস্টেমটিতে অত্যন্ত উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন রেডার এবং ইন্সট্যান্ট ফায়ার-এর জন্য বিশেষ সিস্টেম থাকে। খুব সহজে বহনযোগ্য এই ব্যাটারিগুলো বিশেষ ট্রাকে করে যেকোন স্থানে বহন করে নিয়ে যাওয়া যায়। এগুলো মরুভূমি ও ঠান্ডা অঞ্চল দু'জায়গাতেই সমানভাবে কার্যকরী S-400 পরিবহন করা ট্রাকগুলো অত্যন্ত উচ্চমানের ও গতি সম্পন্ন।
রাফাল যুদ্ধবিমানের পর, এবার ভারতীয় বায়ুসেনার পাখির চোখ S-400 ট্রায়াম্ফ...
S-400 triumph

এই সিস্টেমের একটি রাডার একসঙ্গে 200 টি টার্গেট লক করতে পারে এবং 36 টি পর্যন্ত মিসাইল ফায়ার করতে পারে। এটি সাধারনত সার্চ এন্ড ইকুইজিশন রেডারস এবং অধিগ্রহণ রেডারস। এস ব্যান্ড এবং এক্স-ব্যান্ড টাইপ এই রাডার গুলো প্রযুক্তিগত দিক থেকে সর্বাধুনিক। এটিকে রয়েছে অতি অসাধারণ জ্যামিং প্রতিরোধ ব্যবস্থা। এই মাল্টিমোড ফায়ারিং রেডার সব ধরনের প্রতিকূল আবহাওয়া ইলেকট্রনিক কাউন্টার ব্যবস্থা এবং সকল উচ্চতায় সক্রিয়ভাবে খুঁজতে সক্ষম। আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য 360° ক্ষমতা ছাড়াও লক্ষ্যবস্তু আক্রমণের জন্য রয়েছে টুডি অথবা থ্রিডি নজরদারি সেন্সর। রয়েছে একসঙ্গে একাধিক লক্ষ্যবস্তুতে আক্রমণ করার সুবিধা
যেকোন আবহাওয়ায় কাজ করে এমন একটি বেতার তরঙ্গ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আক্রমণের ক্ষেত্রে সহায়তা করে পাশাপাশি থাকছে ইনফ্রারেট রেডার সিস্টেম এবং টু-ওয়ে ডেটা লিংক। এই রাডার থেকে কমান্ড প্রদান করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ক্ষেপণাস্ত্র মারার নির্দেশ দেয়। শত্রু বিমান বা ক্ষেপণাস্ত্র কত উচ্চতা এবং কোন অবস্থানে রয়েছে তা ডেটা প্রসেসিং করে মিসাইল ফায়ার করার আদেশ দেয়।
SHARE

Milan Tomic

Hi. I’m Designer of Blog Magic. I’m CEO/Founder of ThemeXpose. I’m Creative Art Director, Web Designer, UI/UX Designer, Interaction Designer, Industrial Designer, Web Developer, Business Enthusiast, StartUp Enthusiast, Speaker, Writer and Photographer. Inspired to make things looks better.

  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a comment