একনজরে অযোধ্যা মামলার রায়


একনজরে অযোধ্যা মামলার রায়

https://www.newsgoogle.in/
একনজরে অযোধ্যা মামলা

১৫২৮: মোগল সম্রাট বাবরের কমান্ডার মির বাকি তৈরি করেন বাবরি মসজিদ।

১৮৮৫: বিতর্কিত জমির ওপর চাঁদোয়া টাঙ্গাতে ফৈজাবাদ জেলা আদালতে আবেদন করেন মহন্ত রঘুবির দাস খারিজ হয়ে যায় সেই আবেদন।
১৯৪৯: বিতর্কিত ভূখণ্ডের বাইরে মূল গম্বুজের স্থাপিত হলো রামলালার মূর্তি।
১৯৫০: রামলালার পুজো করতে চেয়ে ফৈজাবাদ আদালতে মামলা দায়ের করেন গোপাল সিং বিশারদ।
১৯৫৯: বিতর্কিত জায়গায় অধিকার চেয়ে মামলা দায়ের নির্মোহী আখড়ার।
১৯৬১: পাল্টা আবেদন করল উত্তরপ্রদেশের সুন্নি সেন্ট্রাল ওয়াকফ বোর্ড।
১৯৮৬‌ সালের ১লা ফেব্রুয়ারি:  হিন্দু পূজারী
দের জন্য বিতর্কিত জায়গা খুলে দিতে সরকারকে নির্দেশ দিলো স্থানীয় আদালত।
১৯৮৯ সালের ১৪ই: আগস্ট বিতর্কিত জমি নিয়ে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে বলল এলাহাবাদ হাইকোর্ট।
১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর: ভেঙে ফেলা হলো বাবরি মসজিদ।
১৯৯৩ সালের ৩রা এপ্রিল:  বিতর্কিত এলাকার জমি অধিগ্রহণ করতে কেন্দ্র পাস করল অ্যাকুইজিশন অফ সর্টান  এরিয়া অ্যাট অযোধ্যা অ্যাক্ট।
১৯৯৪ সালের ২৪ শে অক্টোবর:  ইসমাইল ফারুকীর মামলায় সুপ্রিম কোর্ট জানাল ইসলাম ধর্মের অখন্ড অংশ নয় মসজিদ।
২০০২ সালের এপ্রিল: বিতর্কিত জমির মালিক কে তা নিয়ে বিচার শুরু হাইকোর্টে।
২০০৩ সালের ১৩ই এপ্রিল:  আসলাম ওরফে ভুরে মামলায় সুপ্রিম কোর্ট জানালো অধিকৃত জমিতে কোনরকম ধর্মীয় কার্যকলাপ করা যাবে না।
২০১০ সালের ৩০শে সেপ্টেম্বর:  2-1 সংখ্যাগরিষ্ঠ রায়ে হাইকোর্ট জানালো বিতর্কিত জমি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী আখড়ার, রামলালার মধ্যে ভাগ হবে।
২০১১ সালের ৯ই মে: হাইকোর্টের রায়ে স্থগিতাদেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৭ সালের ২১ শে মার্চ:  আদালতের বাইরে বাদী-বিবাদী পক্ষের মধ্যে মিটমাট করার কথা বললেন প্রধান বিচারপতি জে এস খেহর।
২০১৭ সালের ৭ই আগস্ট:  এলাহাবাদ হাইকোর্টের  ১৯৯৪ সালের রায়ের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলার বিচারে তিন সদস্যের বেঞ্চ তৈরি করল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৮ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারি: শুরু হলো ফৌজদারি মামলা শুনানি।
২০১৮ সালের ২০ই জুলাই রায়দান স্থগিত রাখল আদালত।
২০১৮ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর: পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চে মামলা পাঠাতে রাজি হল না সুপ্রিম কোর্ট নতুন করে গঠিত তিন সদস্যের বেঞ্চে হবে শুনানি।
২০১৮ সালের ২৪ শে ডিসেম্বর: ২০১৯ সালের ৪ই জানুয়ারি শুনানির আবেদন জমা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ৪ই জানুয়ারি: ১০ জানুয়ারি রায়ের লক্ষ্যে গড়া হয়েছে সাংবিধানিক বেঞ্চ।
২০১৯ সালের ৪ই জানুয়ারি: বিচারপতি এস এ বোবদে, এন ভি রামানা, ইউ ইউ ললিত, এবং ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়কে নিয়ে প্রধান বিচারপতি গগৈয়ের  নেতৃত্বে গঠিত হল পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ।
২০১৯ সালের ৪ই জানুয়ারি: অব্যাহতি চাইলেন বিচারপতি ইউ ইউ ললিত।
২০১৯ সালের ২৫শে জানুয়ারি: গঠিত হল পাঁচ সদস্যের নয়া বেঞ্চ। সেখানে এলেন বিচারপতি অশোক ভূষণ এবং এস এ নাজির।
২০১৯ সালের ২৯শে জানুয়ারি: বিতর্কিত জমির ৬৭ একর আসল মালিককে ফিরিয়ে দিতে সুপ্রিম কোর্টে গেল কেন্দ্র।
২০১৯ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারি: মধ্যস্থতার জন্য রাজি হল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ৮ই মার্চ: প্রাক্তন বিচারক এফ এম আই কালিফুল্লার নেতৃত্বাধীন বেঞ্চকে মধ্যস্থতার ভার দিল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ৯ই এপ্রিল: কেন্দ্রের জমি ফেরত দেওয়ার আবেদনের বিরোধিতা করল নির্মোহী আখড়া।
২০১৯ সালের ১০ই মে: ১৫ আগস্টের মধ্যে মধ্যস্থতা শেষ করতে বলল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ১১ই জুলাই: মধ্যস্থতার অগ্ৰগতির রিপোর্ট চাইল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ১লা আগস্ট: মুখবন্ধ খামে সুপ্রিম কোর্টে জমা পড়ল মধ্যস্থতার রিপোর্ট।
২০১৯ সালের ২ই আগস্ট: মধ্যস্থতা ব্যর্থ হতেই ৬ই আগস্ট থেকে দৈনিক শুনানির সিদ্ধান্ত নিল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ৬ই আগস্ট: শুরু হল দৈনিক শুনানি পর্ব।
২০১৯ সালের ৪ই অক্টোবর: ১৭ অক্টোবরের মধ্যে শুনানি শেষ করবে বলে জানালো সুপ্রিম কোর্ট। রায় ঘোষণা করা হবে ১৭ই নভেম্বরের মধ্যে।
২০১৯ সালের ১৬ই অক্টোবর: শেষ হল শুনানি। রায় দান স্থগিত রাখল সুপ্রিম কোর্ট।
২০১৯ সালের ৯ই নভেম্বর: রায় ঘোষণা করল সুপ্রিম কোর্ট।
SHARE

Milan Tomic

Hi. I’m Designer of Blog Magic. I’m CEO/Founder of ThemeXpose. I’m Creative Art Director, Web Designer, UI/UX Designer, Interaction Designer, Industrial Designer, Web Developer, Business Enthusiast, StartUp Enthusiast, Speaker, Writer and Photographer. Inspired to make things looks better.

  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
  • Image
    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 comments:

Post a comment